না ফেরার দেশে সুহান

না ফেরার দেশে সুহান

না ফেরার দেশে সুহান

মোঃ নাজিউল হক

 

 

সএসসি পরীক্ষা শেষ।
সুহানের মা বাবার অাশা সুহান ভাল রেজাল্ট করবে।
সুহান ঢাকা সরকারি মুসলিম হাইস্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে।
সুহান তার মা বাবার ছোট ছেলে।
সুহানের বড় ভাই লালমনিরহাট থাকে এবং গ্রামীন ব্যাংকে চাকরী করে।
সুহানের দুই জমজ বোন অাছে।
সারাদিন ভাইয়া ভাইয়া করে মাতিয়ে রাখে।
সুহানও এখন ওর বোনদের সাথে বেশী সময় কাটায়।
সুহান সারাদিন ওর বোনদের সাথে থাকে অার বিকেলে স্কুলমাঠে খেলতে যায়।
এভাবে দিন কাটতে থাকে সুহানের।
সুহানের বড় ভাই সুহানকে একদিন ফোন করে বলে, শোন, তুই যদি A+ পেয়ে যাস তোর জন্য সুন্দর গিফট অাছে।
সুহান খুব খুশি হয়।
সুহানের মা সুহানে বলল, তোর ভাইয়া কি দেবে জানিনা কিন্তু তোর বাবা তোকে নতুন ফোন কিনে দেবে।
সুহান খুশিতে লাফিয়ে উঠে।
ধীরে ধীরে রেজাল্টের সময় এগোতে থাকে।
দেখতে দেখতে।
চলে অাসল এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্টের দিন।
অার দুই ঘন্টা পরেই রেজাল্ট হবে। সকাল থেকে কিছুই খাইনি সুহান।
সুহানের মা অনেক।খাওয়ানোর চেষ্টা করেছে কিন্তু খাইনি।
দুপুর একটায় রেজাল্ট পেল সুহান।
সে A+ পায়নি😭😭😭😭




সুহান ৪.৯০ পেয়েছে।
ওর সাথের সবাই প্রায় A+ পেয়েছে কিন্তু ও পাইনি।
খুব মন খারাপ করে অাছে সুহান।
সুহানের মা সুহানকে শান্তনা দিলেও সুহানের বাবা খুব বকাঝকা করলো এমনকি সুহানের ভাইয়ো বকাঝকা করলো।
সুহানের মা সুহানের বাবাকে বলল, এত বকার কি অাছে, সাবধান অামার ছেলেকে বকবে না।
সুহানের বাবা বলল, বকবে না ওকে, ওকে বকাবকি করবো না তো সোহাগ করব?? শয়তান কোথাকার।
সুহান রাগ করে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে গেল।
বেড়িয়ে যাওয়ার সময় বলে গেল, অামি যেন অার ঘরে না ফিরি।
সুহানকে অাটকানোর চেষ্টা করলেও পারা যাইনি।
সুহান রাস্তা দিয়ে অানমোনা হয়ে হাটছে।
সুহানের মা
সুহানের বাবাকে বলল, তোমার জন্য ছেলেটা রাগ করে বাড়ি থেকে বের হলো, কখন ফিরবে কে জানে, যাও অামার ছেলেকে নিয়ে এসো।
সুহানের বাবা বলল, অামি পারব না, যখন অাসার ও ঠিকই অাসবে।
অারেকদিকে, সুহান মন খারাপ করে রাস্তা দিয়ে হেটেই চলেছে।
হঠাৎ বৃষ্টি নেমে পড়ল,
বৃষ্টির মধ্যে দিয়েই হাটছে সুহান।
সুহানের বাবা সুহানকে বাড়ি নিয়ে যাওয়ার জন্য ছাতা নিয়ে বের হলো।
সুহান হাটতে হাটতে খেয়াল করেনি সে রাস্তার মাঝখানে চলে এসেছে।
খুব জোরে বৃষ্টি শুরু হওয়ার কারনে ঠিকমত কিছুই দেখা যাইতেছে না।
সুহান তখন রাস্তার মাঝখান দিয়ে হাটতেছিল তখনি একটা বাস সুহানের সামনে চলে অাসল অার বাসের সাথে ধাক্কা লেগে সুহান রাস্তার পাশে ছিটকে পড়ল।
মাথা ফেটে রক্ত বের যাচ্ছে,
বৃষ্টির পানির সাথে রক্ত মিশে পানি লাল হয়ে গেল।
বৃষ্টির মাঝে রাস্তার পাশে পড়ে অাছে সুহানের নিথর দেহ।
চারপাশে লোকজন ঘিরে অাছে।
সুহানের বাবা দেখলো লোকজনের ভিড়।
তখনি সে ভীড়ের মধ্যে গিয়ে দেখল সুহানের নিথর দেহ পড়ে অাছে।
তখন সুহানের বাবা সুহানকে কোলে নিয়ে একটা গাড়িতে তুলে হাসপাতালে নিয়ে গেল।
হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটারেই মারা গেল সুহান।
পাগলের মত হয়ে গেল সুহানের বাবা।
তারপর অবসন্ন অবস্থায় মৃত সুহানকে নিয়ে বাড়ি ফিরল সুহানের বাবা।
সুহানকে দেখে অজ্ঞান হয়ে গেল সুহানের মা।
ওর ছোট দুইবোন কাঁদতে লাগল।
সুহানের বড় ভাই খবর পেয়ে চলে অাসল।
তারপর সুহানের ভাই সুহানের লাশ জরিয়ে ধরে কাঁদতে কাঁদতে বলল, ভাই ফিরে অায়, অামি অার তোকে বকাবকি করব না, ফিরে অায় ভাই।
শোকময় হয়ে গেল চারদিক।




সুহানের মায়ের জ্ঞান ফিরল। তারপর সুহানের মা সুহানের বাবার শার্ট ধরে বলল, তোমার জন্য ছেলেটা অাজ নেই,
তুমি খুনী, তুমি অামার ছেলেকে স্পর্শ করবে না, ছেলেটা যাওয়ার সময় যা বলেছিল তাই হলে এই বলে কাঁদতে শুরু করল। নিথর হয়ে বসে অাছে সুহানের বাবা।
তারপর সুহানকে শেষ গোসল করিয়ে কাফনের কাপড় পরিয়ে খাটিয়ায় তোলা হল।
সুহানকে নিয়ে যাওয়ার সময় সুহানের মা ও ওর বোনেরা খাটিয়া টেনে ধরে কাঁদতে লাগল।
তারপর প্রতিবেশীরা সুহানের ফুপু সুহানের মা ও বোনদেরকে খাটিয়ার কাছ থেকে সরিয়ে অানল।
খাটিয়া কাধে নিল সুহানের ভাই ও বাবা সহ অারো কয়েকজন লোক।
তারপর বিসমিল্লাহ অাল্লাহ অাকবর বলতে বলতে কবরস্থানের দিকে রওনা হলো।
জানাযা শেষে কবরে লাশ নামানোর সময় সুহানের বাবা ও ভাই কাঁদতে শুরু করল।
সুহানের বাবা কাঁদতে কাঁদতে বলল, বাবা, সুহান পারলে অামায় ক্ষমা করে দিস।
তারপর কবর দেয়া হলো সুহানকে।
অল্প বয়সেই জীবনের ইতি ঘটল সুহানের।
না ফেরার দেশে চলে গেল সুহান।
অার নিজের ঘরে ফেরা হলো না সুহানের।
সাড়ে তিন হাত মাটির ঘরই হলো ওর শেষ অবস্থান।
😭😭😭😭😭সমাপ্ত😭😭😭😭😭😭
(কোম পরীক্ষার রেজাল্ট খারাপ হলে কোন অভিভাবকদের উচিত নয় তার সন্তানকে বকাঝকা, গালমন্দ করা ঠিক নয়, এতে সে সন্তানের মস্তিস্কের ওপর অাঘাত পড়ে এবং রাগের বশে সুইসাইড ও করতে পারে।
অাবার কখনো ঘটে যেতে পাড়ে কোন ভয়ংকর দূর্ঘটনা, যেমনটা গল্পের কাহিনীতে রয়েছে।
রেজাল্ট খারাপ হলে সন্তানকে বোঝাতে হবে এবং শান্তনা দিতে হবে, কোনরকম গালমন্দ করা যাবে না। অার যদি কেউ করে তার সন্তানের অবস্থা সুহানের মত হতে পারে)

গল্পটি আপনার কেমন লাগলো রেটিং দিয়ে জানাবেন
[Total: 1   Average: 5/5]
বন্ধুদের সঙ্গে "Share" করুন।
Open chat
1
যোগাযোগ করুন
আপনার গল্পটি প্রকাশ করার জন্য যোগাযোগ এখনে।