মুখোশ মানুষ

মুখোশ মানুষ

মুখোশ মানুষ
লেখকঃ মোঃ নাজিউল হল

চার বছর অাগে অামার বাবা খুন হয়েছে। কিন্তু সে খুনের খুনিদের এখনো পুলিশ খুজে পায়নি। বাবার খুনের প্রতিশোধ অধোরা রয়ে গেল। সারা পৃথিবীতে একমাত্র বাবা ছাড়া অার কেউ ছিল না।
সে বাবাও এখন অামাকে ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে গেছে।
অার বাবা বলে কাউকে ডাকতে পারি না।
এখন একা একাই বাচার অভ্যাস করেছি। একদিন একটা লোকের সাথে অামার দেখা হলো। অামার চেয়ে বছর তিনেক বড় হবে। অামার বয়স বর্তমানে ২৯ বছর।
লোকটার নাম মাসুদ।
মাসুদের সাথে বেশ বন্ধুত হলো। দেখা হওয়ার পর থেকেই অামরা ভাল বন্ধু হয়ে গেলাম।
ভালই কাটছিল অামার দিনগুলো।
মাসুদের সাথে ঘুরতে যাই
হোটেলে একসাথে খাই, ও মাঝে মাঝে অামার বাড়িতে অাসে।
মাসুদ হয়ে উঠল অামার সেরা বন্ধু।
অামার জীবনে একজন ভাল বন্ধুকে তো পেলাম,
এটাই অনেক।
মাসুদ একদিন অামার বাসায় অাসল।
অামি মাসুদকে বললাম,
তুই ঘরে গিয়ে বস, অামি কিছু বানিয়ে অানি।
মাসুদ ঘরে গেল।
তারপর অামি কিচেনে গেলাম।
অামি খাবার বানাচ্ছিলাম,
হঠাৎ——————————————-
মাসুদ ছুড়ি দিয়ে অামাকে অাঘাত করতে নিল,
অল্পের জন্য অামার লাগেনি।
অামি ছুড়ি হাত দিয়ে ধরলাম।
অার বললাম, কি করছিস মাসুদ, অামাকে ছুড়ি দিয়ে অাঘাত করছিস কেন????
মাসুদ তখন বললো, তুই অাসলে বোকা, তাই অামাকে চিনতে পারিসনি,
অামিই তোর বাবাকে চার বছর অাগে খুন করেছি।
অামার পায়ের তল থেকে বোধহয় মাটি সরে গেল মাসুদের কথা শুনে।
অামি বললাম, কেন মজা করছিস মাসুদ??
মাসুদ বললো, কোন মজা করছি না অামি,
মনে অাছে ২৪শে জানুয়ারীর রাতের কথা,
যেদিন রাতে তোর বাবা বাড়ি ফিরছিল,
সেদিন রাতেই তো তোর বাবাকে খুন করেছি।
অামি বললাম, কেন তুই অামার বাবাকে খুন করেছিস???? বল অামাকে।
মাসুদ বললো, তোর বাবা অামাদের অবৈধ মদ বিক্রির খবরটা ধরে ফেলেছিল অার ফোনে ভিডিও করেছিল,
যদি পুলিশকে দেখাতো তাহলেতো অামরা ধরা পরে যাবো তাইনা,
সেই জন্যই তোর বাবাকে খুন করে সব প্রমান হাতিয়ে নিয়েছি,
অার এখন তোকে খুন করব।
তারপর অামি বললাম, অামার বাবার খুনের প্রতিশোধ অামি নেবই,
তুই কি ভেবেছিস অামি কিছু জানিনা???
তুই যেদিন অামার সাথে হোটেলে খেতে গিয়েছিলি সেদিন তোর অার তোর বন্ধুর ফোনালাপ শুনে ফেলেছি,
অামি সব অাগে থেকেই জানি।
মাসুদ একটু ঘাবরে গেল।
অার বললো, সেদিন অামিও বুঝতে পেরেছিলাম  তুই সব জেনে গেছিস,
তাই তোকে মারার সুযোগ খুজছিলাম,
অাজ পেয়েছি,
অাজ তোকে খুন করে সব প্রমান শেষ করব।
অামি বললাম, সে অাশা তোর কোনদিন পূরন হবে না বাছা,
তুই কি ভেবেছিস, তোর মত মুখোশ মানুষকে অামি শায়েস্তা করতে পারব না??
পুরো বাসা পুলিশ ঘিরে অাছে,
অামি অাগে থেকেই পুলিশকে জানিয়ে রেখেছি,
অার তুই যে এতক্ষন বাবার খুনের কথা নিজের মুখে বললি তা সব অামি রেকর্ডারে রেকর্ড করেছি, এই রুমে রেকর্ডার অামি অাগেই সেট করে রেখেছি।
মাসুদ বললো, তোকে খুন করে অামি জেলে যাবো।
মাসুদ যেই অামাকে মারতে যাবে তখনি অামি জোরে চিৎকার দিলাম।
সব পুলিশ ঢুকে পড়ল বাসার ভিতরে।
তারপর মাসুদকে গ্রেফতার করল।
তারপর অামি পুলিশের হাতে রেকর্ডার তুলে দিলাম।
পুলিশ কমিশনার বললো, ধন্যবাদ, রাজু,
তোমার জন্য এই খুনীকে অাজ ধরতে পারলাম।
অামি বললাম, এটা যে অামার দায়িত্ব ছিল, অামার বাবার খুনের প্রতিশোধ নেয়া
হয়ে গেল।
তারপর মাসুদকে নিয়ে পুলিশ চলে গেল।
এক মাস পর,
পুলিশ কমিশনার অামায় খবর দিল,
মাসুদ  ফাঁসির রায় দিয়েছে।
অার ওর দলের মানুষদের অামৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছে অাদালত।
কাল মাসুদের  ফাঁসি হবে।
শুনে অামার খুব ভালো লাগল।
মাসুদের ফাঁসি হয়ে গেল। অামি ঐ দিন বাবার কবরের কাছে গিয়ে বললাম,
বাবা তোমার খুনীর ফাঁসি হয়ে গেছে বাবা,
তোমার মৃত্যুর প্রতিশোধ নিয়েছি বাবা।
তারপর কবর বাবার কবর জিয়ারত করলাম।
😭😭😭😭😭😭সমাপ্ত😭😭😭😭😭😭

গল্পটি আপনার কেমন লাগলো রেটিং দিয়ে জানাবেন
[Total: 0   Average: 0/5]
বন্ধুদের সঙ্গে "Share" করুন।
Open chat
1
যোগাযোগ করুন
আপনার গল্পটি প্রকাশ করার জন্য যোগাযোগ এখনে।