সেসেরা - প্রথম পর্ব

সেসেরা – প্রথম পর্ব

সেসেরা

লেখকঃ রিদয়

 

 

প্রথম পর্ব

এই যে মিঃ সেসরা গাছের দিকে তাকিয়ে
কী দেখো?(সানজিদা)
– গাছে কয়টা আম ধরেছে, সেটা গুনতেছি।
(রিদয়)
– ঢং দেখানোর জায়গা পাও না?
– গাছের আম গুনাও কী দোষ??
– প্রতিদিন সকাল বেলা তোমার এইখানে কী?
– এই জায়গাটা আমাদের। আব্বু বলেছে, আম
গুলো
দেখে রাখতে। হিহিহিহি
– কী বিশ্রী হাসি!
– হা হা হা
– উফফফফ! আজিব ছেলে তো তুমি!
কথাটা বলেই সানজিদা ঠাস করে জানালাটা
বন্ধ করে দিল। রিদয় হচ্ছে সেই ছেলে যে,সানজিদার জন্য পাগল। এক দেখাতেই তার ভাল
লেগে যায়। একদিন নিজেদের জায়গা
দেখতে এসে সানজিদাকে দেখেছিল চুল ছেড়ে
দেওয়া অবস্থায়। ঐ দিন থেকেই রিদয়
সানজিদাকে একদম মনের মধ্যে জায়গা দিয়েছে।
তাই তো, এখন নিজেদের জায়গা দেখার
নামে, সানজিদাকে প্রতিদিন দেখতে আসে।
তবে, সানজিদা ছেলেটিকে, একদম সহ্য করতে
পারে না। কারন, কোন একটা সকাল বাদ যায়
না রাহাতের মতো একটা বিশ্রী ছেলেকে
সানজিদার চোখে না পড়া।
পরের দিন সকাল বেলা…………
– হাই,,,কেমন আছো?(রিদয়)
– জানি না। তোমার সাথে ঐ ছেলেটা কে?
– আজকে আম গুলো পাড়বো। তাই,ওকে সাথে
করে নিয়ে এসেছি।
– তুমি এরকম সেসরা পোলা কেন?
– আমি কী করছি? আব্বু বলেছে আম গুলো পেড়ে
পাশের বাড়িগুলো তে দিয়ে আসতে আর
সাথে নিজেদের বাড়িতে নিয়ে যেতে।
– তার মানে কী? তুমি এখন আমাদের বাড়িতে
আসবে??
– হুম।তোমাদের বাড়িতে যাবো। তোমাদের
সাথে যে বাড়িটা আছে,ওই বাড়িতেও
যাবো।
– তুমি আসলেই একটা সেসরা ছেলে। একটা
মেয়েকে দেখার জন্য সবকিছুই করতে পারো।
– এতক্ষণে ব্যাপারটা বুঝতে পারলে?
– আমি এখনই দরজা বন্ধ করে দিবো।দেখি তুমি
ক্যামনে আমাদের বাড়িতে আসতে পারো!
– ব্যাপার না। আজ আমি তোমাদের বাড়িতে
যাবোই………
– দেখা যাবে!
একটু পর রিদয় আম গুলো নিয়ে, সানজিদাদের
বাড়িতে গিয়ে নক করতেই সানজিদার আম্মু এসে
দরজা খুলে দিল…….

 




 

– কে বাবা তুমি?
– আমি আপনাদের জামাই।(রিদয় খুব আস্তে
কথাটা বলল, যেটা সানজিদার আম্মুর কান পর্যন্ত
পৌঁছাই নি)
– কিছু বললে বাবা??
– না আন্টি, কিছু বলি নাই। আপনি আমাকে
চিনবেন না। আপনাদের বাড়ির পিছনে যে
অনেকগুলো আম গাছ, ওইগুলো সব আমাদের। আব্বু
বলেছে, কিছু আম পেড়ে যেন পাশের বাড়ি
গুলোতে দিয়ে আসি।
– ওহ,,,,খুব ভাল করেছো। বসো বাবা তুমি।আমি
তোমার জন্য কিছু খাবার নিয়ে আসি।
– আন্টি থাক লাগবে না। শুধু এক গ্লাস ঠান্ডা
পানি দেন, খুব পিপাসা পেয়েছে।
– আচ্ছা,ঠিক আছে।
– আন্টি সানজিদা কোথায়?
– তুমি সানজিদাকে চিনো নাকি?
[ এ রে! কথাটা বলে তো নিজের বাঁশ নিজেই
রেডি করল রিদয়…….. ] – না আন্টি। আমি আর সানজিদা একই কলেজে
পড়তাম।(যদিও, মিথ্যা কথা বলল রিদয়)
– ওহ। সানজিদা তো গোসল করতে গেছে। একটু
পরেই বের হবে, তুমি বসো বাবা একটু!
রিদয় মনে মনে ভাবতে লাগলো,, সানজিদার
আম্মুটা কত্তো সুন্দর করে কথা বলে আর তাঁর
মেয়েটার মনে হয় বাঁকা করে কথা না বললে,
পেটের ভাত হজমই হয় না।
.
কিছুক্ষণ পর সানজিদা গোসল করে বের হল।
সানজিদার উপর রিদয়ের চোখ পড়তেই, সানজিদার
উপর থেকে সে যেন চোখ সরাতে পারছে না।
মেয়েটাকে আজ অসম্ভব সুন্দর লাগছে। ভিজা
চুলে একদম পরীর মত লাগছে সানজিদাকে ।
রিদয়ের ইচ্ছা করছিল, ঐ সময় সানজিদার একটু
স্পর্শ নিতে!
.
রিদয়কে দেখেই সানজিদা বলতে লাগল……
– ওই, তোমার কী কোন কাজ নাই?
রিদয় কিছু বলতে যাবে, তার অাগেই
সানজিদার আম্মু বলে উঠল……
– আহা! মানুষের সাথে কেউ এভাবে কথা বলে?
– না আন্টি, ঠিক আছে।
– তোমরা দুইজন কথা বলো। আমি গেলাম, আমার
কাজ আছে……
– দেখছো,,, অামি বলছিলাম না যে, আজ
তোমাদের বাড়িতে আমি ঢুকবোই…
– হুহ। মানুষের লজ্জা না থাকলে, এরকমই হয়!
– এটা নতুন কথা না। সবাই জানে আমার লজ্জা
কম।
– হুম। তোমার শুধু লজ্জা কম না। তোমার সবই কম!
– যেমন?
– সব সময়য় এরকম আমার পিছনে লেগে থাকো
কেনো?
– আমি থাকি না তো! আমার ভিতরেরটা
লেগে থাকে।
– চুপ চাপ, সোজা_সুজি উত্তর দাও?
– ভালবাসি তোমাকে অনেক, তাই।
– কিছু বললে!!! শুনতে পাড়লাম না তো?
– মানে কী??তোমার কানে কি ঠাডা পড়ছে?
– হা হা হা হা
– হাসিটা অনেক সুন্দর…..
– কার?
– আমার হবু বউয়ের।
– মানে কী???
– তোমার বুঝা লাগবে না।
– এই যে,,,শুনো?
– জ্বী…বলো?
– আমার তোমাকে ভাল লাগে না।
– ওহহহ। তাহলে কাকে ভাল লাগে, শুনি?
– আমি একটা ছেলের সাথে রিলেশন করি। সো,
আমাকে আর ডিস্টার্ব করবে না।
.
এরকম কথা সানজিদার মুখ থেকে শোনার জন্য
রিদশ একদমই প্রস্তুত ছিল না। মুহূর্তের মধ্যে
রিদয়ের মুখ কাল হয়ে গেল। কি বলবে বুঝতে
পারছিল না। ভিতরে যেন, ভেঙ্গে চূড়ে
যাচ্ছে। তারপরেও, রিদয় সানজিদাকে কিছু
বুঝতে না দিয়ে, আবারও হাসতে হাসতে
বলল…….
– ব্যাপার না! ওইটা আমি দেখে নিবো নি।
– তুমি দেখে নিবে মানে?
– তুমি কী সত্ত্যিই আমাকে ভালবাসো না?
– না। কখনো আর আমার জানালার পিছনে
আসবে না।
– আচ্ছা।
– আমাদের বাড়ির আশে পাশে আর যেন ঘোরা
ঘুরি করতে না দেখি?
– আচ্ছা।
– কখনও আর আমাদের বাসার ভিতরে ঢুকবে না?
– আচ্ছা।
– এরকম আচ্ছা, আচ্ছা করছো কেনো?
– না এমনি। আমি এখন যাই……
.
সানজিদার কথাগুলো আজ রিদয়ের অনেক
খারাপ লেগেছে।

চলবে ২য় পর্বে-

#Single Boy Hridoy

 

 

দ্বিতীয় পর্বটি এখানে পড়ুন

গল্পটি আপনার কেমন লাগলো রেটিং দিয়ে জানাবেন
[Total: 1   Average: 5/5]
বন্ধুদের সঙ্গে "Share" করুন।
Open chat
1
যোগাযোগ করুন
আপনার গল্পটি প্রকাশ করার জন্য যোগাযোগ এখনে।