Home Horror Story Bengali Horror Story - Bangla Vuter Golpo | ভিজে...

Bengali Horror Story – Bangla Vuter Golpo | ভিজে বিড়াল

Today, we have gone a lot of distance from reading the storybooks. Because we don’t have sufficient time for going to the library and reading the storybooks In this age of the Internet. But, if we can read the story on this internet, then it is very interesting. So we have brought a few collections of Bengali story for you. Hope you will enjoy the stories in this busy lifestyle. In this post you will find the latest Bengali Horror Story, You can read here  Horror Story, download  Bengali Horror Story PDF, Hare you found top Bengali Horror Story.

 

 

  ভিজে বেড়াল  

     তিলোত্তমা মজুমদার 

 

শায়েস্তাপুরে সামন্তবাবু একজন সম্পন্ন গেরস্ত ভদ্রলােক । মান্যগণ্য , বুদ্ধিমান , বিবেচক কেউ যদি বিপদে পড়ে সামন্তবাবুর দ্বারস্থ হয় , তিনি সাধ্যমতাে তার উপকার করেন বলে সুখ্যাতি আছে । সামন্তবাবু বেশ বড় ব্যবসায়ী এছাড়া তাঁর গােয়াল – ভরা গােরু , পুকুর – ভরা মাছ , বিশাল খেতে শাক – সবজি ফলে  প্রতিদিন প্রায় তিরিশ লিটার দুধ দেয় গােরুগুলাে । তার মন পাঁচ লিটার ঘরের জন্য রাখা থাকে । বাকি পঁচিশ চলে যায় । সত্যনারায়ণ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারে । ভালমানুষ সামন্তবাবুর সংসারে লােক কম নেই । আত্মীয়স্বজন , পরিচারক , গৃহভৃত্য , খেতের মুনিশ সব মিলে বেলায় পনেরােটি পাত পড়ে । তাদের জন্য হেঁশেল দেখাশে করেন সামন্তবাবুর জাঁদরেল ছােটপিসিমা । তিনি সেকালের হােম সায়েন্সে এম এ করে সামন্তর ।

 হােম মিনিস্টার ! তাঁর চোখ ফাঁকি দিয়ে বুলবুলি পাখিরাও পাকা পেয়ারা ঠুকরে খেতে পারে না । সামন্তবাবু ছােটপিসিমার চোখের মণি । ডাকেন ননীগােপাল  বলে । ছােটপিসিমার চারখানা পােষা কুকুর । ননীগােপাল সামন্ত গােরু খুবই ভালবাসেন । ছােটপিসিমার কুকুরগুলােও তাঁর প্রিয় বটে । কিন্তু তিনি বিড়াল দু ’ চক্ষে দেখতে পারেন না । বিড়াল পথ কাটলে যাত্রা ফিরিয়ে নেন । বিড়াল ডাকলে তিনি হাঁকাহাঁকি করে গৃহভৃত্য বা কর্মচারীদের দিয়ে তাকে দূর করে ছাড়েন  কিন্তু জগৎ বিড়ালময় । তাই প্রায়ই বিড়ালের সঙ্গে । কোথাও না – কোথাও তাঁর সাক্ষাৎ হয়ে । যায় । এমনকী ছােটপিসিমারও চোখ এড়িয়ে বাড়ির উঠোন , বাগান , গােয়াল , এমনকী রান্নাঘরে পর্যন্ত বিড়াল ঢুকে পড়ে । দেখতে পেলেই ছােটপিসিমা চিলচিৎকার জুড়ে দেন , “ মার মার । চ্যালাকাঠ ছুড়ে মার লাঠিটা কোথায় ওরে অ সত্য ! গেলি কোথায় রে মুখপােড়া ।

বিড়াল ছােটাপসিমার ঐ নয় । কিন্তু ননীগােপালের সহ্য হয় না বলে । তাঁরও সয় না । অথচ ভরা সংসারে দুধের গন্ধ , মাছের কাঁটা , দই – ছানা কত কী ! মার্জারকুলের পক্ষে এ যে আদর্শ বাড়ি ! সেবার শায়েস্তাপুরে ঢেলে বর্ষা  নামল । শুধু সেখানেই কেন ! সারা পশ্চিমবঙ্গ , বিহার , ওডিশায় বৃষ্টির আর বিরাম নেই । খেত – খামার , পথঘাট জলে  ডুবে আছে । নদী একেবারে ভরাে – ভরাে । শায়েস্তাপুরে মাতলা নদী যেমন গভীর , তেমনি চওড়া । লােকে বলাবলি করতে । লাগল , এমনি বর্ষণ আর সাতদিন হলেই মাতলায় বান ডাকবে । এই রকম এক রাতে , কাজকারবার সেরে ফেরার পথে ভিজে চুপসে গেলেন । সামন্তবাবু  সত্য শুকনাে গামছা , লুঙ্গি  এনে দিল । সামন্তবাবু পরিষ্কার হয়ে । আরাম করে সাদা ধবধবে বিছানায় । বসলেন । ছােটপিসিমা স্বয়ং আদা তুলসীপাতা দেওয়া গরম চা নিয়ে ভাইপােকে দিচ্ছেন , এমন সময় শব্দ উঠল , “ মিউ ! ”  তিনজনেই স্তব্ধ । নিথর । সজাগ । আবার , “ মিউ ! ” “ বিড়াল না ? ” চায়ের কাপ টেবিলে

Bengali Horror Story  – Horror Story In Bengali – Bangla Vuter Golpo 

 

রেখে বিছানা থেকে লাফিয়ে নামলেন  সামন্তবাবু । মুখ উত্তেজনায় ঘেমে উঠল , চোখ গােল হয়ে ঘরময় গোল্লাছুট খেলতে । লাগল । যেন বাঘ ডেকেছে এমনই ত্রাসের সঙ্গে তিনি বলে উঠলেন , “ কোথায় ? কোথায় ? সত্য ? মেরেই ফেলব । ফেলবই । আমার সোঁটা কোথায় ? ” ‘ মিউ মিউ মিউ ” বিড়াল যেমন ইঁদুর তাক করে ঝাঁপ দেয় , সত্যও সেরকম শব্দ লক্ষ্য করে সড়াৎ কায়দায় খাটের তলায় সেঁধিয়ে আধ মিনিটের মতাে সময় নিয়ে অনুপ্রবেশকারী সমেত বেরিয়ে এল । সামন্তবাবু আঁতকে উঠলেন , “ এই ঘরেই ! ”  ছােটপিসিমা হতবাক । সত্যর সাঁড়াশির  মতাে আঙুল থেকে ঝুলঝুল করছে একটা  বাচ্চা বিড়াল  দুধের শিশু নয়  বড়ও নয়  ভিজে চোপসানাে ছানাটা ভয়ে আওয়াজ করতে পারছে না  শূন্যে আঁচড় কাটছে  সামন্তবাবু গর্জে উঠলেন , “ দে আছাড় ! পিটিয়ে মার ! আমার ঘরে ঢােকা ! করিস কী তােরা সারা দিন ? ” সত্য টের পাচ্ছিল বিড়ালটা তিরতির করে কাঁপছে তার মায়া হল । সে অসহায়  চোখে ছােটপিসিমার দিকে তাকাল  তিনি সত্যর বিপাক টের পেলেন  দুর থেকে । কঞ্চি কী ঢিল মেরে বিড়াল তাড়ানাে এক ,  আর একটা বাচ্চাকে একেবারে আছড়ে মারা ! সে যে চরম নিষ্ঠুরতা ! তিনি তাড়াতাড়ি বললেন , “ বাবা ননী , আজ যে শনিবার  আজ অনাথ , আতুর , আশ্রিতকে ফেরাতে নেই যে । ”

Bengali Horror Story  – Horror Story In Bengali – Bangla Vuter Golpo 

 

সামন্তবাবু ছাড়ার পাত্র নন  বললেন , “ বিড়াল আমার আশ্রিত নয়  কখনও ছিল না  ওই নােংরা জীবটাকে মেরে দূর কর সত্য ! ”  “ আজ বরং থাক  বৃষ্টিভেজা , মা – হারা কেষ্টর জীব । ভিজে কাঁপছে । একটু গরম দুধটুধ খাক । কাল রাস্তায় ছেড়ে আসবে ‘ খন । ”  ছােটপিসিমার কথা মান্য করলেন বটে সামন্তবাবু , কিন্তু রেগে আগুন হয়ে চা ফেলে ছাতা নিয়ে লুঙ্গি – গেঞ্জি পরেই পথে  বেরিয়ে পড়লেন ।   সকলের জ্ঞাতসারে এই প্রথম কোনও বিড়াল সামন্তবাড়িতে রাত কাটাচ্ছে  সত্য তাকে ভৃত্যদের ঘরে নিয়ে এল  গুটিগুটি

পায়ে প্রায় সবাই এই সৌভাগ্যবান ভিজে বিড়ালটিকে দেখতে এল । সাদা আর  S পাটকিলে রং মেশানাে হুলাে একটা  একটা কান সাদা , অন্যটা রঙিন  তার কপালে বিস্তর খাতির জুটল  সত্য বলেই ফেলল , “ তা বলুন পিসিমা , পায়ে – পায়ে বিড়াল ঘুরঘুর না করলে গেরস্তি যেন জমে না  ফাঁক থেকে যায় । ”  ছােটপিসিমা বলেন , “ সে বললে আর কী হয় বাপু ! এই তাে আমার ননী কিছুতে মুখে খাবার তুলল না । বলে আজ থাক , দিয়েছ , মেনে নিয়েছি কাল বলবে মায়া পড়ে গিয়েছে , তা আমি শুনব না । ও আপদ বিদেয় হবে , তবে আমি অন্নস্পর্শ করব । আমার হয়েছে জ্বালা ! সে না খেলে আমিই বা খাই কোন মুখে !  পরদিন ভােরবেলা সত্য চটের থলেয় পুরে সাইকেল চেপে বিড়াল । বাচ্চাকে দুরের মাঠে দিয়ে এল । জল । থইথই মাঠ । বেচারা কোন দিকে যায় ! সত্যর পিছন পিছন টুকটুক করে ছােটে আর মিহি ডাক ছাড়ে ! “ দুর হতভাগা ! ” বলে সত্য পাঁইপাঁই সাইকেল ছুটিয়ে দিল  পিছু ফিরে দেখল আর ।

সারাদিনের কাজের তাড়ায় বিড়ালের কথা আর ভাবলই না কেউ । শুধু রান্নার কাজলমাসি একবার শুধিয়েছিল , “ কোন দিগরে পার করে এলে তাই ? ” “ ওই ইশকুলের মাঠে । চিনে আসার সাধ্য নেই । ”  কিন্তু দুপুর নাগাদ আবার পেয়ারা । গাছের নীচ থেকে শব্দ এল , “ মিউ ! ” কে যেন শুনল । ছুটে গেল সেদিকে । চিৎকার করে উঠল , “ আরে ! কালকের বাচ্চাটা না ! ”  সবার আগে সত্য বলল , “ অসম্ভব ! হতেই পারে না । এটা ওর ভাইটাই হবে ! ” “ না গাে সত্যদা ! কান দুটো দেখাে ! একটা সাদা , একটা পাটকিলে আমি বলছি , ওটাই  দেখাে , চিনেছে তােমাকে ! তােমার মুখের পানে চেয়ে ডাকছে । “ সর্বনাশ ! বাবু জানলে আমাকেই বিদেয় করে দেবে এবার  ” “ এসেছে যখন ফিরে , পিসিমাকে বলাে একবার  ” পিসিমা বললেন , “ বিদেয় তাে করতেই হবে তবে এসেছে যখন , এইটুকু  একটা ছানা , একটু দুধ – ভাত মেখে খাইয়ে

Bengali Horror Story  – Horror Story In Bengali – Bangla Vuter Golpo 

 

বিদেয় করিস  ”  তাই করল সত্য  আবার ঝােলায় পুরে বিড়াল ফেলার নিয়ম অনুযায়ী এপাড়া – ওপাড়া বিস্তর ঘুরে শায়েস্তাপুর শ্মশানে গিয়ে ফেলে এল  তবু ফের সে ফেরত এল রাতের বেলায় । সামন্তবাবু । টের পাওয়ার আগেই কারা যেন তাকে রাতের মতাে ঝুড়ি – চাপা দিয়ে রাখল । বিড়ালটা ছােট বলেই বিপত্তি । বড় হলে কখন সোঁটা মেরে দিত !  এই বৃষ্টি – বাদলায় , যখন মাতলায় বা ডাকল বলে , যখন পুকুরের কই – মাগুর । সেঁদিয়ে যাচ্ছে জলে ডুবে থাকা ধান । গাছের গােড়ায় , যখন কাক – পক্ষী দেখা । যাচ্ছে না , সাপ গাছের ডাল পেঁচিয়ে । চুপটি করে বসে আছে , তখন সত্য তাদে শায়েস্তাপুরে আজ এখানে , কাল ওখানে বিড়াল ফেলে আসতে লাগল আর । বিড়ালও তাকে দিব্যি শায়েস্তা করে ফিরে এল বারংবার ! যতই ঝুড়ি – চাপা দেওয়া । হােক , কথাটা সামন্তবাবুর কাছে গােপন রইল না যে বিড়াল ঘুরেফিরে আসছে  আর তাকে চৰ্যচোষ্য খাইয়ে বিদেয় করা হচ্ছে !

তিনি ক্রোধে একেবারে অগ্নিশর্মা । হলেন ! সত্যকে এই মারেন কী সেই মারেন ! ছােটপিসিমা বলে বসলেন , “ বাবা ননীগােপাল , একরত্তি একটা বিড়াল , বারবার এমনি করে আশ্রয়ের আশায় ফিরে আসছে , হয়তাে ভগবানেরই ইচ্ছে , সে থাকুক । ” ( ক্রুদ্ধ , বিরক্ত , ভালমন্দ বােধ – হারা সামন্তবাবু চিবিয়ে – চিবিয়ে বলে উঠলেন , “ তা হলে তাে ধরে নিতে হয় ভগবানের ইচ্ছে , আমি গৃহত্যাগ করি ! হয় বিড়াল , নয় আমি এবার তুমি যা বলবে । ”  মুখের উপর এমন জবাব ছােটপিসিমা আগে পাননি  দুঃখে তাঁর চোখে জল এল  ননীগােপালকে তিনি নিজের ছেলে বলেই মনে করেন । তাঁর দিন কাটে কীসে ননীর ভাল হবে , এই চিন্তায়  তিনি ধরা  গলায় বললেন , “ এসব কী বলতে হয় ননীগােপাল ? বিড়ালের সঙ্গে নিজের তুলনা ! সে অবােধ বলেই মানসম্মান জ্ঞান । নেই  তাড়ালেও আসে  সত্যকে বলে কী হবে ! ও অনেক চেষ্টা করেছে  যায় না ! ” সামন্তবাবু তিক্ত স্বরে বললেন , “ যায় ।  চেষ্টা করেছে ! দেখি কেমন না যায় ! রামদীন ড্রাইভার , গাড়ি নিকালাে সত্য ,

ওটাকে বস্তায় পুরে মুখ বাঁধ । ” ছােটপিসিমা শঙ্কিত হয়ে প্রশ্ন  করলেন , “ কোথায় যাচ্ছিস ? ” “ মাতলায় । ” পিসিমা মনে মনে দুর্গানাম জপ করতে লাগলেন  ভাইপােকে ভালই । চেনেন । মাথায় গোঁ চাপলে স্বয়ং ব্রহ্মা বিষ্ণু থামাতে পারে না ! তিনি এখন চেষ্টা করলেও ননীগােপাল বিড়াল বিদেয় করা

Bengali Horror Story  – Horror Story In Bengali – Bangla Vuter Golpo 

 

থেকে নিরস্ত হবেন না  প্রশ্ন করলেন , ‘ জলে ফেলে দিবি ? নদীতে ? ”   “ একদম ! ডুবিয়ে মারব পাজিটাকে ছােটপিসিমা কাঁপা গলায় বললেন , “ সত্য , বস্তার বাঁধন খুলে দিস বাবা ! নইলে মহাপাপ হবে ।  মাতলার বিশাল ঢেউ নিমেষে ভাসিয়ে ডুবিয়ে দিল বস্তাটা । সামন্তবাবু দৃশ্যটা দেখলেন । তাঁর প্রসন্ন মুখে হাসি ফুটল সময়টা বিকেল  কিন্তু ঘন কালাে । মেঘের জন্য রাত্রির মতাে লাগছে । রামদীন অতি সাবধানে গাড়ি চালাতে । লাগল নদীপারের রাস্তায় । বাড়ি পৌঁছতে না – পৌঁছতে আকাশ ভেঙে বৃষ্টি নামল । রাতে খিচুড়ি , আলুর দম , বেগুন ও । পাপড়ভাজা খেয়ে পরম সন্তোষে ঘুমােতে গেলেন সামন্তবাবু ।পাশের ঘরে ছােটপিসিমা কাজলমাসি ও কুকুরদের নিয়ে ঘুমােন । বৃষ্টির শব্দে যেন কথা শােনা যায় না । তবু দু ’ চারটি সাংসারিক গল্পগাছার পর তাঁরা  ঘুমােলেন কুকুরগুলাে সজাগ পাহারা দিতে লাগল  বিড়াল হত্যার জন্য সবার  মনখারাপ ।

একমাত্র তুষ্ট সামন্তবাবু গভীর ঘুমে পাশ ফিরতে গিয়ে বুকের কাছে ভিজে ভিজে , নরম – নরম কী যেন একটা টের পেলেন । ঠান্ডাও বটে জিনিসটা ! ঘুম একেবারে ভেঙে গেল  ছিটকে  সরে এলেন । এমন বর্ষার রাত ! সাপখােপ এল নাকি ! আলাে জ্বালামাত্র হাঁ হয়ে ।  গেলেন তিনি ! একটুও আওয়াজ বেরল না । – মুখ দিয়ে বিছানায় সেই ভিজে বিড়ালটা ।  সেই সাদায় আর পাটকিলে রংয়ে | মেশানাে ! সেই কান ! সেই লেজ ! বিড়ালটা উঠল । শরীরটা বাঁকাল । গা  ঝাড়া দিল । সামন্তবাবু নড়তে পারছেন । হাতটা পর্যন্ত সুইচে লাগানাে  – কী করে সম্ভব । নিজের হাতে ছুড়ে দিয়েছিলেন বিড়ালসমেত বস্তা । মুখটা অবশ্য খুলে দিয়েছিল সত্য । তাতে কী ! স্বচক্ষে দেখেছেন সব ডুবে যাচ্ছে ! ডুবে গেল ! অত জলে ছােট্ট একটা বিড়াল সাঁতরে আসতেই পারবে না । এখন স্বচক্ষেই দেখলেন , বিড়ালটা হাই তুলল । এবার যেন বড় হচ্ছে । তাই তাে ! বাড়ছে । যে ! ক্রমশ স্ফীত হচ্ছে ! আরও বাড়ছে । প্রথমে ভেড়ার মতাে , তারপর গাধার মতাে , মােষের মতাে . . . উফ ! কী তী ভয়ঙ্কর দাঁত ! কী নখ  লাল জিভ !  সামন্তবাবু আর পারলেন না । চিৎকার [ করে অজ্ঞান হয়ে গেলেন । কুকুরগুলাে  গলা ছেড়ে ডাকতে লাগল ।

Bengali Horror Story  – Horror Story In Bengali – Bangla Vuter Golpo 

 

 সে রাতে ঠিক কী হয়েছ জানে না । কাউকে বলেননি সামন্তবাবু । শুধু তারপর থেকে অনাথ বিড়াল বাচ্চা দেখলেই তিনি ঘরে নিয়ে আসেন । বাড়িতে এখন পঁচিশটি বিড়াল । তাদের । জন্য দৈনিক দশ লিটার দুধ ও পাঁচ কেজি মাছ বরাদ্দ । তারা বাড়ির লােকের পায়ে – পায়ে ঘুরে বেড়ায় । কুকুরদের সঙ্গে খেলে । ছােট বাছুরের গা ঘেঁষে ঘুমােয় ।  মারামারি , চুরিচামারি কিছুই করে না । শায়েস্তাপুরের লােকে বলাবলি করে , সামন্তবাবু নাকি বিড়ালের ভূত দেখেছিলেন । সত্য নাকি অনেকবার সেই ভিজে কচি বিড়ালটির সাক্ষাৎ পেয়েছে । এই আছে , ওই উবে গেল ! হয়তাে সত্যর কথা আর সামন্তবাবুর পরিবর্তন দেখে লােকে দুইয়ে দুইয়ে চার করেছে !

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Must Read

Bengali Horror Story – ভূতের সঙ্গে গল্পসল্প

Today, we have gone a lot of distance from reading the storybooks. Because we don't have sufficient time for going to the library and...

Thakurmar Jhuli Golpo – চাষা ও চাষাবউ

Today, we have gone a lot of distance from reading the storybooks. Because we don’t have sufficient time for going to the library and...

Bengali Sad Story – তোমায় ছাড়া বেঁচে থাকি কি করে

Today, we have gone a lot of distance from reading the storybooks. Because we don't have sufficient time for going to the library and...

Bengali Detective Story – কঠিন শাস্তি

Today, we have gone a lot of distance from reading the storybooks. Because we don't have sufficient time for going to the library and...

Bangla Rupkothar Golpo –  রাখাল ও পরীর

Today, we have gone a lot of distance from reading the storybooks. Because we don't have sufficient time for going to the library and...